ব্যাংক একাউন্ট মেইনটেন্যান্স ফি বছরে কত

লেনদেন করার জন্য আমরা সাধারণত তিন ধরনের ব্যাংক ডিপোজিট হিসাব পরিচালনা করে থাকি। সেভিংস ডিপোজিট একাউন্ট, কারেন্ট ডিপোজিট একাউন্ট এবং শর্ট টার্ম ডিপোজিট একাউন্ট। এই তিন ধরনের ডিপোজিট হিসাব পরিচালনা করার জন্য, বছরে দুইবার অ্যাকাউন্ট মেইনটেনেন্স ফি প্রদান করতে হয়। জুন মাসের শেষের দিকে একবার এবং ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে একবার, ব্যাংক কর্তৃপক্ষ হিসাব থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি কেটে নেয়। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পরিচালনা ফি সাধারণত প্রত্যেকটা ব্যাংক একই ধরণের হয়ে থাকে। এখানে উল্লেখ্য যে মেইনটেন্যান্স ফি এর সাথে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রদান করতে হয়।

একাউন্ট মেইনটেন্যান্স ফি
সেভিংস ডিপোজিট একাউন্টে ক্যালেন্ডার বছরের প্রথম ছয় মাস অথবা শেষ ছয় মাস; মানে জানুয়ারি থেকে জুন অথবা জুলাই থেকে ডিসেম্বর এই ছয় মাসে গড় ব্যালেন্স বা স্থিতি যদি ৫০০০ টাকা বা তার কম হয়, তাহলে গ্রাহককে সঞ্চয়ী হিসাব পরিচালনার জন্য কোন ফি প্রদান করতে হয় না। গড় ব্যালেন্স যদি ৫০০০ টাকার উপরে হয় কিন্তু ২৫০০০ টাকার কম হয় তাহলে গ্রাহককে ১০০ টাকা এবং তারসাথে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রদান করতে হয়। আর যদি গড় ব্যালেন্স ২৫০০০ টাকার উপরে হয় তাহলে গ্রাহককে ৩০০ টাকা এর সাথে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রদান করতে হয়

ব্যাংক আপনার কাছ থেকে বছরে কত টাকা কেটে নেয়।

কারেন্ট ডিপোজিট একাউন্ট এবং শর্ট টার্ম ডিপোজিট একাউন্টে ক্যালেন্ডার ইয়ার এর প্রথম ছয় মাসে ৫০০ টাকা সাথে ১৫ শতাংশ ভ্যাট এবং দ্বিতীয় ছয় মাসে ৫০০ টাকা সাথে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রদান করতে হয়।

আরো পড়তে পারেন:  আপনার জন্য সেরা ক্রেডিট কার্ড কোনটি

এক্সাইজ ডিউটি বা আবগারি শুল্ক
অ্যাকাউন্ট মেইনটেন্যান্স ফি ছাড়াও আপনার হিসাব থেকে ক্যালেন্ডার ইয়ারে আরেকটি ফি কর্তন করা হয়। সেটা শুধু ডিসেম্বর মাসে কর্তন করা হয়। এর নাম হলো আবগারি শুল্ক বা এক্সাইজ ডিউটি। ২০১৭ সালের জুলাই মাসের ১ তারিখের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ক্যালেন্ডার বছরে আপনার অ্যাকাউন্টে ডেবিট অথবা ক্রেডিট ব্যালেন্স যদি-

– এক লক্ষ টাকা অতিক্রম না করে তাহলে আপনার একাউন্ট থেকে কোন আবগারি শুল্ক কর্তন করা হবে না।
– ব্যালেন্স যদি এক লক্ষ টাকা অতিক্রম করে কিন্তু ৫ লক্ষ টাকা অতিক্রম না করে, তাহলে আপনাকে ১৫০ টাকা আবগারি শুল্ক প্রদান করতে হবে।
– ৫ লক্ষ টাকার বেশি কিন্তু ১০ লক্ষ টাকার কম হলে পাঁচশত টাকা আবগারি শুল্ক প্রদান করতে হবে।
– ১০ লক্ষ টাকার বেশি কিন্তু ১ কোটি টাকার কম হলে ২৫ শত টাকা প্রদান করতে হবে।
– ১ কোটি টাকার বেশি কিন্তু ৫ কোটি টাকার কম হলে ১২ হাজার টাকা প্রদান করতে হবে।
– আর ৫ কোটি টাকার বেশি যে কোন পরিমাণ ডেবিট অথবা ক্রেডিট ব্যালেন্সের জন্য ২৫ হাজার টাকা প্রদান করতে হবে।

ব্যাংক আপনার কাছ থেকে বছরে কত টাকা কেটে নেয়

চেক বই
চেক বই এর প্রতিটি পাতার জন্য সর্বনিম্ন ২ টাকা থেকে শুরু করে ১০ টাকা বা তার বেশিও হতে পারে। চেক বইয়ের প্রতি পাতার মূল্য সাধারণত একেক ব্যাংকে একেক ধরনের হয়ে থাকে। কোন কোন ব্যাংক, অ্যাকাউন্ট খোলার সঙ্গে সঙ্গেই ১০ পাতা থেকে শুরু করে ২৫ পাতার চেক বই ফ্রি ফ্রি দিয়ে থাকে। এখানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ্য যে, কোন কোন ব্যাংকে প্রত্যেক পাতা চেক এর মূল্য সেভিংস অ্যাকাউন্ট এর জন্য এক রকম, কারেন্ট একাউন্ট এবং শর্ট টার্ম ডিপোজিট একাউন্ট এর জন্য এক রকম হয়ে থাকে। সাধারণত সেভিংস অ্যাকাউন্টের জন্য চেক বইয়ের পাতার মূল্য তুলনামূলকভাবে কম হয়ে থাকে এবং বাকি দুই ধরনের হিসাবের জন্য চেক বইয়ের পাতার মূল্য তুলনামূলকভাবে বেশি হয়ে থাকে।

আরো পড়তে পারেন:  লোন নাকি ক্রেডিট কার্ড : কোনটি নিবেন

ডিপোজিট হিসাব করলে সাধারণত আপনাকে উপরিউক্ত খরচগুলো অবশ্যই বহন করতে হবে। তাই হিসাব খোলার আগে অবশ্যই জেনে বুঝে পছন্দমত ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খুলবেন।

Recommended For You

About the Author: এডমিন