ঋণ থেকে মুক্তি পাওয়ার পাঁচটি উপায়

বিভিন্ন কারণে মানুষ ঋণের বেড়াজালে আটকে পড়েন। ঋণগ্রস্থ ব্যক্তি সাধারণত শারীরিক এবং মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে । তাই মানুষ চেষ্টা করে কিভাবে ঋণ শোধ করার যায়। ব্যক্তিগত ঋণ নির্মূল করার জন্য নিম্নোক্ত পাঁচটি কৌশল ঋণ শোধ করার জন্য সত্যিকার অর্থে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

ঋণ শোধ করার উপায়

১। বাজেট তৈরি করুন এবং বাজেটের মধ্যে খরচ করার চেষ্টা করুন: কোন কিছু কেনার জন্য প্রথমে বাজেট তৈরি করুন। সবসময় চেষ্টা করুন বাজেটের বাইরে যেন খরচ না হয়। প্লাস্টিক মানি যেমন: ক্রেডিট কার্ড বা ডেবিট কার্ডের পরিবর্তে ক্যাশ টাকা ব্যবহার করার করুন। প্রত্যেক মাসে আপনার কী কী জিনিস প্রয়োজন এবং আপনি তার কী পরিমান টাকা খরচ করতে চান, তার জন্য একটা তালিকা তৈরি করে ফেলুন এবং সে অনুযায়ী খরচ করুন।

২। সর্বোচ্চ সুদের হারের ঋণ আগে পরিশোধ করুন: আপনার সমস্ত ঋণের জন্য একটি তালিকা তৈরি করুন। যেমন- ক্রেডিট কার্ড, পার্সোনাল লোন, হোম লোন, এসএমই লোন, কার লোন, শিক্ষা লোন ইত্যাদি। প্রত্যেকটি ঋণের বিপরীতে মিনিমাম পেমেন্ট নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিশোধ করুন। আপনার তালিকার মধ্যে যে ঋণের সুদের হার সবচেয়ে বেশি সেই ঋণের মিনিমাম পেমেন্টের সাথে অতিরিক্ত অর্থ পরিশোধ করুন। বিশেষকরে ক্রেডিট কার্ডের ঋণ। এভাবে আপনি ঋণ পরিশোধ করলে খুব তাড়াতাড়ি আপনি ঋণের জাল থেকে বের হয়ে আসতে পারবেন। ফাইনান্সিয়াল এক্সপার্টগণ মনে করেন, সবচেয়ে কম অউটস্টান্ডিং এর ঋণ আগে পরিশোধ করা উচিত। কারণ, কম ব্যালান্সের ঋণ আগে পরিশোধ করা হলে ঋণ পরিশোধের মনোবল বৃদ্ধি পায়।

আরো পড়তে পারেন:  ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়

৩। ঋণ একত্রীকরণ: আপনার যদি ক্রেডিট রেটিং ভাল থাকে, তাহলে আপনার উচিৎ হবে আপনার সমস্ত ঋণ একই ব্যাংকে বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নিয়ে আসা। যে ব্যাংকে সুদের হার কম, শুধু সেই ব্যাংকেই ঋণ নিয়ে আসতে হবে । ঋণএকত্রীকরণের কারণে একদিকে যেমন আপনার ঋণের পরিমান কমতে থাকবে, অন্যদিকে আপনার মানসিক চাপ অনেকাংশে কমে যাবে।

সঞ্চয়৪। অতিরিক্ত অর্থ উপার্জনের পথ বের করুন: আপনার যদি সুযোগ থাকে, তাহলে বর্তমান আয়ের পাশাপাশি অতিরিক্ত আয় করার চেষ্টা করুন। আপনার যদি এমন কোন অ্যাসেট (সম্পদ) থাকে, যা থেকে আপনার তেমন কোন আয় হয় না বা সেই সম্পদ প্রয়োজন নেই, সেই সম্পদ বিক্রি করে আপনি ঋণ পরিশোধ করতে পারেন।

৫। আপনার পাওনাদারদের সাথে কথা বলুন: আপনি যখন ঋণ পরিশোধ করতে পারবেন না, তখন আপনার ঋণ প্রদানকারী ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা বলা উচিৎ। কারণ, অনেক ক্ষেত্রে ঋণ প্রদানকারী ব্যাংক আপনার প্রতি নমনীয় হতে পারে। এক্ষেত্রে তারা যেটা করতে পারে তাহল, তারা আপনার ঋণের মেয়াদ বাড়িয়ে দিতে পারে অথবা ঋণের সুদের হার কমিয়ে দিতে পারে। সততার সাথে আপনার সমস্যা খুলে বলুন, দেখবেন কোন না কোন পথ পেয়ে যাবেন।

ঋণ নির্মূল করতে শৃঙ্খলা, পরিকল্পনা এবং সময় প্রয়োজন কিন্তু এটি আপনার চিন্তার চেয়েও বাস্তবে দ্রুত বাস্তবায়ন হতে পারে যদি আপনি-

  • আপনি কী ব্যয় করছেন তা বুঝেন,
  • ঋণ পরিশোধের জন্য পরিকল্পনা তৈরি করতে পারেন,
  • পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করে বাস্তবায়ন করতে পারেন।

Recommended For You

About the Author: এডমিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *